বাংলা ভার্সন

Code of Conducts

শিক্ষার্থীদের অবশ্য পালনীয় আচরণ-বিধি


০১.    সকল ছাত্র-ছাত্রীকে নিজ নিজ ধর্মের বিধি-বিধান সুষ্ঠুভাবে মেনে চলতে হবে।
০২.    মাতা-পিতা, শিক্ষক-শিক্ষিকা বড়দের যথাযথ সম্মান করবে শ্রদ্ধা-ভক্তি দেখাবে।
০৩.    সত্যবাদী হতে হবে, অন্যায় অসত্যকে ঘৃণা করতে হবে। সৎ বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে মিশতে হবে কারণ সৎ সংগে স্বর্গবাস অসৎ সংগে সর্বনাশ।
০৪.    পরিশ্রমী অধ্যবসায়ী হতে হবে। কারণ সফলতা অর্জনে এর কোন বিকল্প নেই।
০৫.    নির্ধারিত স্কুল ইউনিফর্ম ছাড়া কোন ছাত্র-ছাত্রী কোন অযুহাতে কখনোই স্কুলে প্রবেশ করতে পারবে না।
০৬.    কোন প্রকার খেলার সরঞ্জামাদি নিয়ে কোন ছাত্র-ছাত্রী স্কুলে প্রবেশ করতে পারবে না।
০৭.    সিঁড়ি দিয়ে নামা বা ওঠার সময় কোন ছাত্র-ছাত্রী হৈ চৈ করতে পারবে না।
০৮.    টিফিন পিরিয়ডের পর ওয়ার্নিং বাজার সাথে সাথে সকল ছাত্র-ছাত্রী অবশ্যই শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করবে।
০৯.    ছুটির ঘন্টা বাজার পর সকল ছাত্র-ছাত্রীকে নিঃশব্দে সারিবদ্ধভাবে সিঁড়ি দিয়ে শ্রেণি কক্ষ ত্যাগ করতে হবে। লাইন ভেঙ্গে হুড়োহুড়ি করে নামা চলবে না।
১০.    স্কুল চলাকালীন সময়ে টিফিন পিরিয়ড ব্যতীত অন্য কোন সময়ে কোন ছাত্র-ছাত্রী শ্রেণি কক্ষের বাইরে বা অন্য কোন ফ্লোরে যেতে পারবে না।
১১.    কোন ছাত্র-ছাত্রী কোন অবস্থাতেই বিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ফ্লোরে বা ছাদে উঠতে পারবে না।
১২.    এক শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রী কোন অবস্থাতেই অন্য শ্রেণিতে প্রবেশ করতে পারবে না।
১৩.    পাঠ সংক্রান্ত উপকরণ ছাড়া অন্য কোন অবাঞ্ছিত কিছু বহন করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
১৪.    শ্রেণি কক্ষে ছাত্র-ছাত্রীরা বিনা কারণে নিজের সিট থেকে উঠে অযথা ঘোরা ফেরা করা বা উচ্চস্বরে কথা-বার্তা বলতে পারবে না।
১৫.    শ্রেণিকক্ষ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন সু-সজ্জিত রাখা ছাত্র-ছাত্রীদের পবিত্র দায়িত্ব কর্তব্য।
১৬.    স্কুলের সম্পদ কেউ নষ্ট করতে পারবে না, কোন সম্পদ নষ্ট হতে দেখলে তৎক্ষণাৎ স্কুল কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে। সম্পদের ক্ষতি সাধন করলে তার যথোপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দিতে সকল ছাত্র-ছাত্রী বাধ্য থাকবে।
১৭.    শ্রেণিকক্ষের দেয়াল, টয়লেট অথবা স্কুলের কোন দেওয়ালে, দরজায় বা জানালায় কোন কিছু লিখলে তার বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
১৮.    শ্রেণির নির্ধারিত পাঠ আগে ভাগে বাড়ি থেকে রিডিং পড়ে আসতে হবে এবং শ্রেণিতে শিক্ষকের পাঠদান  মনোযোগ সহকারে শুনতে হবে এবং প্রশ্ন করে ভালভাবে বুঝে নিতে হবে। কোন সমস্যা থাকলে সম্মানের সাথে পুনরায় বুঝিয়ে দিতে শিক্ষককে অনুরোধ করতে হবে।
১৯.    ২য় হতে ১০ম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীরা অবশ্যই মনে রাখবে যে, যে কোন পাঠের শেষে অধ্যায়ভিত্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
২০.    প্রতি পিরিয়ডের পাঠদানের তথ্য, তত্ত্ব বা মর্মকথা ডায়েরিতে লিখে নিতে হবে।
২১.    স্কুলের সকল পরীক্ষায় প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রীর নিয়মিত অংশ গ্রহণ বাধ্যতামুলক।
২২.    কোন ছাত্র-ছাত্রীর উপস্থিতি ৮০% এর কম হলে, কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া তাকে পরবর্তী (প্রথম সাময়িক, দ্বিতীয় সাময়িক বার্ষিক) পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে দেওয়া হবে না।
২৩.    পরীক্ষার হলে কথা-বার্তা বলা বা আসন পরিবর্তন করা যাবে না। পরীক্ষায় যে কোন অসদুপায় অবলম্বন করলে তাকে পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হবে।
২৪.    ছুটির পরে কোন ছাত্র স্কুল প্রাঙ্গনে দৌড়াদৌড়ি বা খেলাধুলা করবে না। স্কুল ছুটির পর ১৫ মিনিটের মধ্যে ছাত্র-ছাত্রী স্কুল ত্যাগ না করলে যদি কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে সেজন্য স্কুল কর্তৃপক্ষ কোন দায়-দায়িত্ব বহন করবে না।
২৫.             “সকলের তরে সকলে আমরা
                  প্রত্যেকে আমরা পরের তরে
          ‘শেখার জন্য আসো এবং সেবার জন্য বের হও
          ---- এই মহামন্ত্রে সকল ছাত্র-ছাত্রী উদ্বুদ্ধ হবে মেনে চলবে।

শিক্ষককে তেমনভাবে শ্রদ্ধা করো, যেমন ভাবে শ্রদ্ধা করো তোমার পিতা-মাতাকে।